বাংলাদেশ বিমানের ময়ূরপঙ্খী বিমানটি ছিনতাইয়ের চেষ্টা করা ব্যক্তি আত্মসমর্পণ করেছেন। জানা গেছে, আত্মসমর্পণ করা ওই যুবকের নাম মাহাদি। চিত্রনায়িকা শিমলার প্রেমে ব্যর্থ হয়ে এই বিমান ছিনতাই করে সে, এমন খবর প্রকাশ করেছে একটি বেসরকারী টিভির অনলাইন সংস্করণ।

এ বিষয়ে সিমলার সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাকে পাওয়া যায়নি।

এর আগে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে সন্ত্রাসীর কবলে পড়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিমানটি জরুরি অবতরণ করে। দুবাইগামী ওই ফ্লাইট ময়ূরপঙ্খী ছিনতাইয়ের চেষ্টাকারী প্যারা কমান্ডো অভিযানে নিহত হন। মাত্র আট মিনিটের কমান্ডো অভিযানে তাকে পরাভূত করা হয় বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন সেনা কর্মকর্তা এয়ার ভাইস মার্শাল মুফিদুল আলম। ২৪ ফেব্রুয়ারি রবিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তারা এ তথ্য জানান।

সেনা কর্মকর্তা বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী সেনা কমান্ডোরা চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অভিযান পরিচালনা করে। প্রথমে ছিনতাইকারীকে গ্রেফতারের আহ্বান জানানো হলেও তিনি কমান্ডোদের ওপর চড়াও হন। এ সময় আমাদের সঙ্গে গোলাগুলিতে তিনি আহত হন। এরপর বাইরে মারা যান।

তিনি আরো বলেন, নিহত ছিনতাইকারী নিজেকে মাহাদি হিসেবে দাবি করেন। প্রধানমন্ত্রী ও তার স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে চান। কিন্তু নিজের স্ত্রীর কোনো ফোন নম্বর দিতে পারেননি। সৌভাগ্যবশত চট্টগ্রামে ছিলেন হলি আর্টিসানে কমান্ডো অভিযান চালানো লেফটেন্যান্ট ইমরুল। তিনি এ অভিযানের নেতৃত্ব দেন। মাত্র আট মিনিটেই অভিযান শেষ হয়। এর আগে ছিনতাইকারীকে কথায় ব্যস্ত রাখেন এয়ার ভাইস মার্শাল মুফিদুল আলম।

এয়ার ভাইস মার্শাল মুফিদুল আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‌আমি ছিনতাইকারীর সঙ্গে শুরু থেকেই কথা বলছিলাম। কথা বলার মাধ্যমে তাকে ব্যস্ত রাখার চেষ্টা করি। অস্ত্রধারী ওই ব্যক্তি একপর্যায়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার দাবি জানায় আমাদের কাছে। তবে সেনা কমান্ডোদের বিশেষ অভিযানে অস্ত্রধারী ছিনতাইকারী পরাভূত হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সেনাবাহিনীর বিশেষ একটি কমান্ডো টিম এবং র‌্যাব, পুলিশ ও এপিবিএন সদস্যরা সম্মিলিতভাবে এই অভিযান চালায়। অভিযানে নেতৃত্ব দেন লেফটেন্যান্ট ইমরুল, সঙ্গে ছিলেন র‌্যাব-৭ এর সিইও।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশ বিমানের দুবাইগামী ময়ূরপঙ্খী উড়োজাহাজটি (বিজি-১৪৭) ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে দুবাই যাওয়ার কথা ছিল। বেলা সাড়ে ৩টায় ঢাকা থেকে ছেড়ে চট্টগ্রাম আসার পথেই এক ছিনতাইকারী পিস্তল হাতে বিমানের ককপিটে প্রবেশের চেষ্টা করে। পাইলট ও কেবিন ক্রুরা বিকেল ৫টা ৪০ মিনিটের দিকে ফ্লাইটটি জরুরিভাবে শাহ আমানতে অবতরণ করান।

এদিকে বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তি নিহত হওয়ার মধ্য দিয়ে প্রায় তিন ঘণ্টার টান টান উত্তেজনার পর চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বাংলাদেশ বিমানের ময়ূরপঙ্খী উড়োজাহাজ ছিনতাই চেষ্টা ঘটনা শেষ হয়েছে। এখন বিমানবন্দরটিতে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে এসেছে। নতুন করে বিমান উড্ডয়নের জন্যও প্রস্তুত হচ্ছে বিমানবন্দরটি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here