নারী কোটায় দেশের বিভিন্ন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে (স্কুল-কলেজ-মাদরাসা-কারিগরি) প্রায় ১ হাজার ২০০ শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে। বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২ মাসের মধ্যে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সাধারণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রথম পর্যায়ে নিয়োগ দেয়া হবে। বিশেষায়িতগুলোতেও পর্যায়ক্রমে নিয়োগ কার্যকর করা হবে।

জানা গেছে, একজন করে শারীরিক শিক্ষা, সঙ্গীত শিক্ষা বিষয়ের পদ সৃষ্টি করা হয়েছে এমপিওভুক্তি নীতিমালা অনুযায়ী সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। পর্যায়ক্রমে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এই দুই বিষয়ের শিক্ষক নিয়োগ দিতে বলা হয়েছে।

নারী শিক্ষকদের জন্য এ পদগুলো সংরক্ষিত করা হয়েছে। এনটিআরসিএ প্রথম পর্যায়ে প্রায় ১ হাজার ২০০ জনকে এ দুই বিষয়ে নিয়োগ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, আগামী ৭ মার্চ সারাদেশে ৩৯ হাজার ৫৩৫ জন শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। এরপর বিশেষ কোটায় (নারী) শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম শুরু করা হবে।

তারা জনান, ৩৯ হাজার ৫৩৫ পদের জন্য প্রায় ২৬ লাখ আবেদন এলেও প্রায় ৫ হাজার পদে আবেদন আসেনি। এসব পদ এ কারণে শুন্য রয়ে গেছে। তাই আগামী ২ মাসের মধ্যে নারী কোটায় এই ৫ হাজার ও প্রায় ১ হাজার ২০০ শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।

তারা আরও বলেন, যদি শুধু নারী কোটায় পদ পূরণ না হয় তবে, সেসব পদে পুরুষ শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে পদ পূরণ করা হবে। এ কার্যক্রম শেষে আরও প্রায় ৬০ হাজার শূন্য পদে শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম শুরু করা হবে আগামী আগস্ট-সেপ্টেম্বর মাসে।

এনটিআরসিএ’র চেয়ারম্যান বলেন, এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী মহিলা কোটায় শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে। এ কার্যক্রম শুরু করা হবে আগামী দুই মাসের মধ্যে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here